পিলখানা হত্যাকাণ্ডে সম্পূর্ণভাবে আওয়ামী লীগ জড়িত: মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ২৫ ফেব্রুয়ারি এলে আওয়ামী লীগের হৃদকম্পন শুরু হয়ে যায়। খালেদা জিয়া নয়, পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে আওয়ামী লীগ ও তৎকালীন সরকার জড়িত। আওয়ামী লীগের প্রত্যক্ষ সহায়তা ও চক্রান্তে বিডিআর হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে। বাংলাদেশকে দুর্বল জাতিতে পরিণত করতে এ হত্যাকাণ্ড।

 

 

রোববার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলোনায়তনে পিলখানা ট্র্যাজেডির বর্ষপূর্তির আলোচনাসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জাতি আজ অস্তিত্ব সংকটে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে এমন সংকট তৈরি হয়। আওয়ামী লীগ দেশের সমস্ত অর্জন ধ্বংস করে দিয়েছে। একদলীয় শাসন কায়েম করে ত্রাসের রাজত্বের পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। ’

তিনি অভিযোগ করেন, ‘জেলা পর্যায়ে বিএনপির শান্তিপূর্ণ পদযাত্রায় বাধা দেওয়া হয়েছে। বিএনপি কর্তৃত্ববাদী শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এই দেশ রক্ষায় বিএনপি রাস্তায় নেমেছে। ’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিএনপির আন্দোলন দমাতে গুলি করে ১৭ জনকে হত্যা করা হয়েছে। দুর্বিষহ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। রাজপথেই ফয়সালা করতে হবে। প্রতিবছর শোক পালন না করে বেরিয়ে আসতে হবে। ছাত্র, যুব, তারুণ্যকে আবারও দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে। ’

আরও পড়ুন…বিএনপির ভূমিকা প্রমাণ করে তারা বিডিআর বিদ্রোহে সম্পৃক্ত: তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সবখানে সরকারের প্রতি মানুষের ঘৃণা। কেউ আজ নিরাপদ নয়। দেশকে রক্ষায় দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণবিপ্লব, গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে পরাজিত করা হবে। ’ তিনি বলেন, ‘কোনো নির্বাচন নয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচন বাংলাদেশে হতে দেওয়া হবে না। ’

‘ভীত হয়ে আবারও একতরফা নির্বাচনের ছক আঁকছে সরকার’

একই অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব দুর্বল করতেই বিডিআর হত্যাকাণ্ড হয়েছে। তদন্ত কমিটি করা হলেও আসল তথ্য উন্মোচন করা হয়নি। আমাদের দাবি সেই রিপোর্ট জাতির সামনে উপস্থাপন করতে হবে। ’

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘সরকার ভীত হয়ে আবারও একতরফা নির্বাচনের ছক আঁকছে। সরকার লুটপাট দুর্নীতি অপশাসনের বিচারের ভয়ে ভীত হয়ে পড়েছে। ’

তিনি বলেন, ‘পিলখানা হত্যাকাণ্ড এবং গণতন্ত্র ধ্বংসের দায়ে সরকারের বিচার করা হবে। দুইবার পার পেয়েছে , এবার আর রক্ষা হবে না। লাঠিপেটা করে পুলিশ আবারও দায়িত্ব নিয়েছে সরকারকে ক্ষমতায় আনতে। জনগণ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে, এদের সঙ্গে নিয়ে সরকারকে হটানো হবে। যত অন্যায় হয়েছে তার বিচার করা হবে। ’

‘এই সরকারের রাষ্ট্র চালানোর অধিকার নেই’

অনুষ্ঠানে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বিএনপি জনগণের ভোটের সহায়তায় রাষ্ট্র ক্ষমতায় যেতে চায়, ভয় পাওয়ার কিছু নেই। সোচ্চার হতে হবে। ’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সহায়তায় পিলখানা হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। সেনাবাহিনী ধ্বংসের চেষ্টা হয়েছে, মনোবল ভেঙে দেওয়া হয়েছে। জনগণকে জানাতে হবে। সরকার বিএনপির ওপর দায় চাপানোর অপচেষ্টা করছে। এই সরকার অযোগ্য সরকার, তাদের রাষ্ট্র ক্ষমতা চালানোর অধিকার নেই। ২৫ ফেব্রুয়ারি সেনাহত্যা দিবস হিসেবে পালন করার দাবি করেন তিনি বলেন, এই সরকার না করলে বিএনপি ক্ষমতায় এলে ব্যবস্থা করবে। ’

হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সরকার একতরফা ইলেকশনের ছক আঁকছে, যদিও এবার লাভ হবে না। এবার নির্বাচন হবে না। দায় সরকারের ওপর বর্তাবে। গৃহযুদ্ধের সূচনা করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। সরকার পদত্যাগ করলেই সমস্যা সমাধান। ’

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আজকের দিন-তারিখ
  • মঙ্গলবার (সন্ধ্যা ৭:১৯)
  • ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  • ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com