ঢাকার আশপাশে খেলার উপযুক্ত কোনো মাঠ নেই: বিসিবি

‘মিরপুরের একাডেমি মাঠে মেয়েরাও অনুশীলন করে, বিপিএলের দলগুলো করে, প্রিমিয়ার ডিভিশনও করে আর জাতীয় দল তো আছেই। একটা মাঠের ওপর কত লোড পরে। অর্থাৎ মাঠের অভাব আছে বলেই সবাই এখানে যাচ্ছে। তাই আমরা চাইছি ঢাকার আশপাশেই দরকার তিন-চারটা মাঠ যেখানে নিয়মিত খেলতে পারে।’ পরশু গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মাঠ সংকটের কথা জানান বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।
তবে সত্য বলতে আসলেও ঢাকার আশপাশে খেলার উপযুক্ত কোনো মাঠ নেই। একটি ছিল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা স্টেডিয়াম। সেটিও এখন পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে আছে তা মেরামতেও কোনো গতি দেখা যাচ্ছে না। মাঠ সংকটে ঘরোয়া লিগের অনেক ম্যাচ মিরপুরের পাশাপাশি অনুষ্ঠিত হয় বিকেএসপিতেও। কিন্তু বিসিবি পরিকল্পনা করছে এই মাঠ-সংকট কাটাতে রাজধানীর আশপাশে কয়েকটি মাঠ প্রস্তুত করার। এ প্রসঙ্গে জালাল ইউনুস বলেন, ‘আগামী বছরে আমরা কিছু মাঠ তৈরি করে যেতে চাই। তাহলে দেশের ক্রিকেট উপকৃত হবে।’
এক সময় দেশের ক্রিকেটে স্পিনারদের দাপট থাকলেও বর্তমানে পেসাররা সমান তালে ম্যাচ জয়ে অবদান রাখছে। যেমনটা বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফরে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচের ঐতিহাসিক জয়ে স্বাগতিকদের ১০ উইকেটই নিয়েছিলেন পেসাররা। এছাড়া বছরের শুরু থেকেই দলের পেস ইউনিট দুর্দান্ত পারফর্ম করছে। তবে এরমধ্যে বোর্ডকে ভাবতে হচ্ছে খেলোয়াড়দের চোট নিয়ে।

এ প্রসঙ্গে ক্রিকেট অপারেশন্স চেয়ারম্যান বলেন, ‘পেসাররা খুব ইনজুরি প্রবণ, আপনি দেখছেন এবাদত ইনজুরি হয়ে বসে আছে, ও আমাদের পেস ইউনিটের একটা সম্পদ ছিল। যেভাবে খেলে আসছিল, সেভাবে সে বিশ্বের সেরা পেসার হতে পারত। তাসকিন, সে-ও ইনজুর্ড। সে বিশ্বকাপে খেলেছে ৫০ ভাগ চোট নিয়ে পুরো ফিট ছিল না। ঐখানে সে সাফার করেছে আমরাও সাফার করেছি। এখন পেস বোলার কখন কে খেলতে পারবে এইটা বলা খুব কঠিন। এটা তাদের ফিটনেসের ওপর ডিপেন্ড করবে। তাই আমরা ফিটনেসের উপর ফোকাস দিতে চাই।’
এদিকে আপাতত তিন ফরম্যাটেই বাংলাদেশ দলের অধিনায়কের ব্যস্ততা রাজনীতির মাঠে। তার অনুপস্থিতিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নেতৃত্ব দিচ্ছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তার অধীনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ফরম্যাটেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে আছে কিউইদের মাটিতে প্রথম বারের মতো ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি জয়।

এমন পারফরম্যান্সের পরও কি নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে কিনা শান্তকে এমনটি জানতে চাইলে জালাল ইউনুস বলেন, ‘দেখুন আমরা যেটা বলেছি, সাকিব চালিয়ে যাবে কি যাবে না সেটা পরের কথা। অধিনায়ক হিসেবে সাকিবকে আমাদের দায়িত্ব দেওয়া ছিল। যেহেতু সাকিব ইনজুরিতে, (নিউজিল্যান্ডে) যেতে পারেনি। সে নিজেও বলেছে। হয়ত নিউজিল্যান্ডে খেলতে যাওয়ার কথা ছিল, প্রথম দিকে ওয়ানডে খেলে হয়ত চলে আসত। কিন্তু সেটা পারেনি ইনজুরির কারণে। তার মানে সে যদি থাকতো অধিনায়কত্ব করত। যেহেতু ইনজুরির কারণে সে যেতে পারেনি তাই শান্ত অধিনায়কত্ব করছে এবং শান্তকে আমরা আগামী সিরিজ পর্যন্ত দিয়েছি। এখন সাকিব অধিনায়কত্ব করবে কি করবে না বা শান্তকে আমরা দেব কি না—এই সিদ্ধান্তগুলো আসবে ক্রিকেট বোর্ড থেকে।’

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আজকের দিন-তারিখ
  • বৃহস্পতিবার (ভোর ৫:৫৪)
  • ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৪ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি
  • ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com