মুজিববর্ষে অ্যাম্বুলেন্স মালিক সমিতির র্যালি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজন মুজিববর্ষ উপলক্ষে রাজধানীতে র‌্যালি করেছেন অ্যাম্বুলেন্স মালিকরা। র‌্যালি থেকে অ্যাম্বুলেন্স মালিকরা সারাদেশে চলাচলের সময় সেতু ও ফেরিতে টোল মওকুফ করার দাবি জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে র‌্যালি শুরু হয়। রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ঘুরে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে প্রায় ৩শ’ অ্যাম্বুলেন্স অংশ নেয়। অ্যাম্বুলেন্স মালিক অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে এই র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়।

আহাদ অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের মালিক আব্দুল মান্নান বলেন, রাজধানীতে যত হাসপাতাল রয়েছে এবং সেসব হাসপাতালে যত অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে, তার সবই আজ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর র‌্যালিতে অংশ নিয়েছে। অ্যাম্বুলেন্সের র‌্যালি এই প্রথম আমরা করতে পেরেছি। এর আগে তেমন কোনো উপলক্ষও ছিল না, আবার থাকলেও রাস্তাঘাটে যানজট বিবেচনায় এরকম র‌্যালি করতে পারিনি। এবারে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এমন র‌্যালির পরিকল্পনা করেছিলাম। আজ সেই আশা পূরণ হয়েছে আমাদের। আমরা জাতির পিতাকে শ্রদ্ধা জানাতে পেরেছি।

আব্দুল মান্নান আরও বলেন, এই র‌্যালিতে আমরা আরও একটি বিষয় তুলে ধরেছি। সেটা হলো— অ্যাম্বুলেন্স চলাচলের জন্য সব ধরনের টোল যেন মওকুফ করা হয়। বঙ্গবন্ধু সেতু পার হতে ৫০০ টাকা লাগে। আবার আসার সময়ও ৫০০ টাকা লাগে। হানিফ ফ্লাইওভারে যেতে-আসতে ৮৫ টাকা করে ১৭০ টাকা লাগে। অথচ প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, গত ১ মার্চ থেকে সারাদেশে অ্যাম্বুলেন্সের চলাচলের জন্য সেতু ও ফেরি পারাপার হতে টোল লাগবে না। কিন্তু সেতু ও ফেরি কর্তৃপক্ষ নির্দেশনা মানছেন না। তারা বলছেন, এ সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র তাদের কাছে নেই। তাই তারা টোল ফ্রি হিসেবে অ্যাম্বুলেন্স পারাপার করতে পারেন না।

অ্যাম্বুলেন্স মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা এ বিষয়ে বলেন, প্রায় তিনশ অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে আমরা র‌্যালির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেছি। একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে জোর দাবি জানিয়েছি। একই নির্দেশনা কোথাও মানা হয়, আবার কোথাও মানা হয় না। মরদেহ নিয়ে যাওয়ার সময় নরসিংদী সেতুতে টোল লাগে না। আবার দাউদকান্দি সেতুতে টোল দিতে হয়। কাঞ্চন ব্রিজেও ডেড বডি থাকলে টোল দিতে হয় না। আবার পোস্তগোলা সেতুতে টোল দিতে হয়। একইভাবে বঙ্গবন্ধু সেতু ও ফেরি পারাপারের সময় যাতায়াত উভয় ক্ষেত্রেই টোল পরিশোধ করতে হয়। টোলের এই টাকা তো যারা গাড়ি ভাড়া করে তাদেরকেই বহন করতে হয়। টোল দেওয়া না লাগলে আমরা ভাড়া কম নিতে পারব।

অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক বাদল মাতব্বর বলেন, বঙ্গবন্ধু জন্মশতবার্ষিকীতে জাতীয় প্রেস ক্লাব থেকে র‌্যালি শুরু হয়ে মগবাজার, রামপুরা, প্রগতি সরণি, বনানী, মহাখালী হয়ে হাতিরঝিল, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট হয়ে আগারগাঁও-আসাদগেট হয়ে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে গিয়ে শেষ হয়। প্রত্যেক অ্যাম্বুলেন্সের সামনে বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানিয়ে নানা স্লোগান লেখা ব্যানার টানানো হয়। একসঙ্গে এত অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে এর আগে কখনো র‌্যালি করা হয়নি। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষেই কেবল এই র‌্যালি আমরা আয়োজন করেছি।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আজকের দিন-তারিখ
  • বুধবার (সকাল ৬:০৭)
  • ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
  • ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com