শীর্ষ তিন ঋণগ্রহীতার কাছে জিম্মি ব্যাংক

ব্যাংকগুলো সব সময় ছোট-ছোট ঋণের পরিবর্তে বড় অংকের ঋণ দিতে বেশি আগ্রহী। এছাড়া বৃহৎ অংকের ঋণে প্রভাবশালীদের চাপ এবং নানা অনিয়ম-দুর্নীতি ও অবব্যবস্থাপনাও বেশি হয়ে থাকে। যার কারণে নির্দিষ্ট খাত ও বড় গ্রুপের কাছে ঋণ কেন্দ্রীভূত হয়ে পড়ছে। ফলে গুটিকয়েক গ্রাহকের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে ব্যাংক খাত।

এমন পরিস্থিতির মধ্যে দেশের ব্যাংক খাত নিয়ে উদ্বেগজনক তথ্য দিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি বলছে ব্যাংক খাতে যদি ৩ শতাংশ খেলাপি বাড়ে, একই সঙ্গে শীর্ষ তিনজন ঋণ গ্রহীতা খোলাপি হন তাহলে বেশিরভাগ ব্যাংক মূলধন সংরক্ষণে ব্যর্থ হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, দেশে ৬১টি ব্যাংকের মধ্যে ১০ ব্যাংকের কাছেই রয়েছে মোট খেলাপি ঋণের ৬৫ শতাংশ। ১০টি ব্যাংকের মধ্যে পাঁচটিতে খেলাপি ঋণ মোট ঋণের ৪৭ শতাংশ। অন্যদিকে ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণের ৮৯ শতাংশই মন্দ বা ক্ষতিজনক পর্যায়ে শ্রেণিকৃত; এক বছরের বেশি সময় এসব ঋণের কিস্তির অর্থ আদায় করতে পারেননি ব্যাংকগুলো।

আরও পড়ুন>>> বেসরকারিখাতে ঋণ পুনরুদ্ধারে কার্যকর পদক্ষেপ চায় ঢাকা চেম্বার

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ আর্থিক স্থিতিশীলতা পর্যালোচনা প্রতিবেদনে (ফিন্যান্সিয়াল স্ট্যাবিলিটি রিপোর্ট) এসব তথ্য উঠে এসেছে। ২০২২ সালের এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

প্রতিবেদনে ঋণের শীর্ষে থাকা গ্রাহকরা খেলাপি হলে কি ঝুঁকিতে পড়বে তা নিরূপণ করা হয়েছে। তবে শীর্ষ ঋণ খেলাপিদের তালিকা প্রকাশ করা হয়নি প্রতিবেদনে। এতে বলা হয়, ব্যাংকের শীর্ষ ৩ ঋণগ্রহীতা খেলাপি হলে ব্যাংকগুলোর  ন্যূনতম মূলধন সক্ষমতা (সিআরএআর) কমে ১০ দশমিক ১১ শতাংশে নামতো। আর যদি ব্যাংকে ৩ শতাংশ খেলাপি ঋণ বাড়ে তাহলে ব্যাংক খাতের সিআরএআর নেমে দাঁড়াতো ৯ দশমিক ৮২ শতাংশে। এখন ব্যাংক খাতের সার্বিক সিআরএআর আছে ১১ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

এছাড়া ব্যাংকগুলোতে যদি ৩ শতাংশ খেলাপি বাড়ে, একইসঙ্গে শীর্ষ তিন ঋণ গ্রহীতা খেলাপি হয় তাহলে ২৯টি ব্যাংক মূলধন রাখতে ব্যর্থ হতো। একই সঙ্গে শীর্ষ ঋণ গ্রহীতারা যদি খেলাপি হয় তাহলে বেশিরভাগ ব্যাংক নির্ধারিত মূলধন সংরক্ষণে ব্যর্থ হবে।

ব্যাংক খাতের মোট খেলাপি ঋণের ৪৫ দশমিক ৯৭ শতাংশই রয়েছে শীর্ষ ৫ ব্যাংকের কাছে। আর ১০ ব্যাংকের কাছে রয়েছে খেলাপি ঋণের ৬৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ। বাকি ৩৫ দশমিক ২৫ শতাংশ অন্য ব্যাংকগুলোর কাছে

ব্যাসেল-৩ অনুযায়ী যেকোনো ধরনের ঝুঁকি এড়াতে একটি ব্যাংকের ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। এর সঙ্গে আপদকালীন সুরক্ষা মূলধন (ক্যাপিটাল কনজারভেশন বাফার-সিসিবি) হিসেবে আরও আড়াই শতাংশ মূলধন রাখার বিধান করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ১১টি ব্যাংক ন্যূনতম মূলধন সক্ষমতা (সিআরএআর) রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। সিআরএআরের সঙ্গে ২ দশমিক ৫০ শতাংশ হারে (১২.৫ শতাংশ) ক্যাপিটাল কনজারভেশন বাফার (সিসিবি) বজায় রাখতে পারেনি আরও ৫ ব্যাংক। এখন যদি ব্যাংকের শীর্ষ তিনজন ঋণগ্রহীতা খেলাপি হন তাহলে আরও ১১টি ব্যাংক সিআরএআর রাখতে ব্যর্থ হবে।

আরও পড়ুন>>> ‘৫ হাজার টাকা ঋণে কৃষকের কোমরে দড়ি, বড় ঋণখেলাপিদের ধরা হয় না’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণ স্থিতি দাঁড়ায় ১৪ লাখ ৭৭ হাজার ৭৮৮ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয় এক লাখ ২০ হাজার ৬৫৬ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ। অর্থাৎ উচ্চ খেলাপির ঝুঁকিতে রয়েছে দেশের ব্যাংক খাত। কারণ আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী খেলাপি ঋণের হার সর্বোচ্চ ৩ শতাংশ সহনীয় বলে ধরা হয়।

আর্থিক স্থিতিশীলতার প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্যাংক খাতের মোট খেলাপি ঋণের ৪৫ দশমিক ৯৭ শতাংশই রয়েছে শীর্ষ ৫ ব্যাংকের কাছে। আর ১০ ব্যাংকের কাছে রয়েছে খেলাপি ঋণের ৬৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ। বাকি ৩৫ দশমিক ২৫ শতাংশ অন্য ব্যাংকগুলোর কাছে।

১২ মাস বা এক বছরের বেশি কোনো বকেয়া ঋণ কিস্তি বা মেয়াদোত্তীর্ণ আদায় না হলে তাকে মন্দ মানের খেলাপিতে শ্রেণিকরণ করা হয়। এটিই মন্দ বা ক্ষতিজনিত ঋণ (ব্যাড ডেট বা লস)। ব্যাংকারদের মতে এসব ঋণ গ্রাহকের কাছ থেকে নগদ অর্থে আদায় করা সম্ভব নয়। এরপর শুরু হয় মামলা দায়েরসহ আইনি প্রক্রিয়া। এ প্রক্রিয়া শেষ করতে ৫ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত সময় লেগে যায় ব্যাংকের।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আজকের দিন-তারিখ
  • বুধবার (দুপুর ২:২৫)
  • ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
  • ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com