৮ বছর পর সিলেট আওয়ামী লীগের সম্মেলন আজ

 

সিলেট জেলা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে সিলেট নগর জুড়ে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে আজ বৃহষ্পতিবার সকাল ১১ টায় সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে শুরু হবে সম্মেলন এজন্য মাদ্রাসা মাঠে প্রস্তুত করা হয়েছে নৌকার আদলে মঞ্চ এর দৈর্ঘ্য ৬০ ফুট এবং প্রস্থ ৩০ ফুট মঞ্চে ২০০ আসন থাকবে

সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। এছাড়া যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন। সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে সম্মেলনে সভাপতিত্ব করবেন।

সম্মেলনে জেলা ও মহানগরের ডেলিগেট ছাড়াও হাজারের বেশী কাউন্সিলর উপস্থিত থাকবেন। প্রায় ৮ বছর পর জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আয়োজন করা হয়। এজন্য নেতাকর্মীদের মাঝে বেশ উৎসাহ বিরাজ করছে। সম্মেলন শেষে বিকেলে কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী জানান, ২০০৫ সালের পর সিলেট আওয়ামী লীগে সম্মেলন হচ্ছে। এছাড়া ২০১১ সালের পর এবার আসবে নতুন কমিটি।

এদিকে বিশেষ করে এবার জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের উভয় কমিটির শীর্ষ নেতৃত্বে পরিবর্তন ঘটবে, নাকি পুরনো নেতৃত্বকেই নতুন করে দায়িত্ব দেওয়া (নবায়ন) হবে, এ নিয়ে জোর গুঞ্জন সিলেট জুড়ে। সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রায় দুই ডজন নেতা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে আগ্রহী। এ লক্ষ্যে তারা গত কিছুদিন ধরে কেন্দ্রে লবিং করেছেন।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে আছেন অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমানকে পুরো দায়িত্ব দেয়া হতে পারে। শেষ মুহূর্তে বয়োবৃদ্ধ লুৎফুর রহমান সভাপতি পদে প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি স্পষ্ট করায় আলোচনা নতুন মোড় নিয়েছে। কেউ কেউ মনে করছেন, তাকেই এবার দায়িত্ব দেয়া হতে পারে। অন্যদিকে পরিবর্তনের সুরও উঠেছে। এই হিসাবে সভাপদি পদে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ও সাবেক এমপি শফিক চৌধুরীর কথাও উঠেছে।

এদিকে, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তনের গুঞ্জন রয়েছে। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শফিক চৌধুরী সভাপতি পদে প্রমোশন পেলে তার স্থলে নতুন মুখ বর্তমান সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শাহ ফরিদ আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, অ্যাডভোকেট নিজাম উদ্দিন ও সুজাত আলী রফিক, উপ-দফতর সম্পাদক জগলু চৌধুরীর নামে জোর গুঞ্জন চলছে।

সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন না হলে এ দুই পদে বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও আসাদ উদ্দিন আহমদকে ফের দায়িত্ব দেয়া হতে পারে। তবে আসাদ সমর্থকরা তাকে সভাপতি হিসাবে দেখতে চায়। এবার আসাদকে সভাপতি এবং কামরানকে কেন্দ্রের নির্বাহী সদস্য থেকে অন্য কোন গুরুত্বপূর্ণ পদে নেওয়ার আলোচনা রয়েছে। তবে কামরান এবারও মহানগরের সভাপতি পদে আসীন থাকতে পারেন বলে শুনা যাচ্ছে। এ শাখার সভাপতি পদে সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মফুর আলী, অ্যাডভোকেট রাজ উদ্দিন আহমদ ও মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালিক এবং যুগ্ম সম্পাদক ফয়জুল আনোয়ার আলোয়ারেরও আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন।

মুক্তিযোদ্ধাদের দাবি: বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে দলের কাছে সিলেটের মুক্তিযোদ্ধারা বেশ কয়েকটি দাবি বুধবার সংবাদ সম্মেলনের তুলে ধরেন সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সর্বশেষ নির্বাচিত কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল। এর মধ্যে অন্যতম দাবি হচ্ছে, এদেশে রাজনীতি করতে হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হতে হবে এবং মুক্তিযুদ্ধবিরোধী কোন পরিবারের সন্তান হওয়া চলবে না। সরকারি বা বিরোধীদল কোথাও ৭১ এর রাজাকার, আলবদর, আল শামস বা বর্তমান জামাত-শিবির পরিবারের কোন সদস্যের রাজনীতি করার অধিকার থাকতে পারে না। ৭১ এর রাজাকার, আলবদর, আল শামস, শান্তি কমিটির সদস্যদের সন্তান এবং অধুনা বিএনপি-জামাত থেকে অনুপ্রবেশকারী কাউকে তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত দলীয় কোন পদে নির্বাচিত বা মনোনয়ন যেন না দেয়া হয়।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com