বার্লিন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন রুশ নেতা নাভালনি

জার্মানির বার্লিন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন রাশিয়ার বিরোধীদলীয় নেতা আলেক্সি নাভালনি। বিষাক্ত নার্ভ এজেন্ট নোভিচক প্রয়োগে কোমায় চলে যাওয়া নাভালনি একমাস ধরে সেখানে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

বার্লিনের শারিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, নাভালনির শারীরিক অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। তার এখন আর হাসপাতালে থেকে চিকিৎসার প্রয়োজন নেই।

নাভালনি নিজেও হাসপাতালের সিঁড়িতে কারও সাহায্য ছাড়াই দাঁড়িয়ে থাকা একটি ছবি পোস্ট করেছেন। ছবিতে তাকে রোগা দেখালেও বেশ সুস্থ মনে হচ্ছে। ছবি পোস্ট করে তিনি লেখেন, ‘‘চিকিৎসকরা আমাকে সুস্থ করে তুলেছেন।’’

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কড়া সমালোচক নাভালনি গত ২০ অগাস্ট রাশিয়ার একটি অভ্যন্তরীন ফ্লাইটে সাইবেরিয়ার তমস্ক থেকে রাজধানী মস্কো যাওয়ার পথে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

অসুস্থ নাভালনিকে নিয়ে তার ফ্লাইট সাইবেরিয়ার ওমস্কে জরুরি অবতরণ করে। ওই শহরেই একটি হাসপাতালে তাকে প্রথম চিকিৎসা দেওয়া হয়। কোমায় চলে যাওয়া নাভালনিকে দুইদিন পর চিকিৎসার জন্য বার্লিন নিয়ে যাওয়া হয়।

বার্লিনের হাসপাতাল থেকেই প্রথম নাভালনিকে সভিয়েত আমলের বিষাক্ত রাসায়নিক নোভিচক দেওয়ার কথা জানানো হয়। বলা হয়, তারা পরীক্ষায় নাভালনির দেহে নোভিচক এর উপস্থিতি পেয়েছেন।

নাভালনির সমর্থকরা প্রথমে বলেছিল, তমস্ক বিমানবন্দরে নাভালনি যে চা পান করেছিলেন তাতে আগেই বিষ মিশিয়ে দেওয়া হয়েছিল। পুতিনের নির্দেশেই এ কাজ করা হয়েছে। যদিও পরে তারা বলেছেন, নাভালনি যে হোটেলে ছিলেন সেখানে তার কক্ষে থাকা পানির বোতলে নোভিচক পাওয়া গেছে।

ক্রেমলিন থেকে বরাবরই জোরালো ভাষায় নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। বুধবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ বলেছেন, নাভালনি চাইলে অন্য রুশ নাগরিকদের মত যেকোনও সময় দেশে ফিরতে পারেন।

‘‘নাভালনিকে ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠতে এবং হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেতে দেখে ক্রেমলিন খুশি হয়েছে।”

নাভালনিকে ছেড়ে দেওয়ার দিন এক বিবৃতিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ‍জানায়, ৪৪ বছরের নাভালনি মোট ৩২ দিন হাসপতালে ভর্তি ছিলেন। তারমধ্যে ২৪ দিন ছিলেন আইসিইউতে।

হাসপাতালের বিবৃতিতে বলা হয়, রোগীর বর্তমান শারীরিক অবস্থা এবং তার সুস্থ হয়ে উঠার ধারা পর্যবেক্ষণ করে চিকিৎসকদের বিশ্বাস, তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন। তবে তাকে যে বিষ দেওয়া হয়েছে দীর্ঘমেয়াদে শরীরে এর কী প্রভাব পড়বে তা বলার সময় এখনও আসেনি।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com